ও আল্লাহ তোমা’র কাছে বিচার দিলাম :নিহত বুয়েট শিক্ষার্থী আবরারের দাদা।

0
412

বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের দাদা আব্দুল গফুর বিশ্বাস নাতিকে হা’রিয়ে প্রায় পা’গল হয়ে গেছেন। ৮৭ বছর বয়সী এই মানুষ চোখে কম দেখেন এবং কানেও ভলোভাবে শুনতে পান না। তবে পরিচিতজনদের কাছে বারবার নাতির জন্য আ’হাজারি করছেন।

তিনি আ’র্তনাদ করে বলেন, আহারে! ওরা আমা’র নাতিকে পি’টিয়ে পি’টিয়ে মে’রে’ছে, খুব ক’ষ্ট দিয়ে মে’রেছে। আমা’র নাতির কি অ’পরাধ? সে নাকি বলেছিল পদ্মা নদী বর্ষাকালে শুকিয়ে যায়, আর বর্ষায় আমাদের পানি দিয়ে ডুবিয়ে দেয়। এ কথা তো সকলে কয়। তার জন্য তাকে এভাবে মা’ইরে ফে’লা হ’লো! ও আল্লাহ, আল্লাহরে তুমি এর বিচার করবা, তোমা’র কাছে বি’চার দিলাম।

তিনি আরো বলেন, আমা’র নাতি নাকি শিবির করে? সে কোনো দল করে না। লেখাপড়া ছাড়া সে কিছু বুঝতো না।

এদিকে আবরার হ’ত্যাকাণ্ডে এ’জাহারনামীয় আ’সামি হোসেন মোহাম্ম’দ তোহাকে (২০) গ্রে’প্তার করেছে মহানগর গো’য়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। তোহা আবরার হ’ত্যা মা’মলার এজাহারভুক্ত ১১ নম্বর আ’সামি। তিনি বুয়েটের এমই বিভাগের ১৭তম ব্যাচের ছাত্র।

এর আগে আজ বেলা ১১টার দিকে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের আইন বি’ষয়ক উপ-সম্পাদক ও বুয়েট সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৬তম ব্যাচের ছাত্র অমিত সাহাকে রাজধানীর সবুজবাগ কালিবাড়ী এলাকা থেকে আ’টক করে পুলিশ। দুপুর ১২টার দিকে আবরারের রুমমেট মো. মিজানুর রহমান ওরফে মিজানকে বুয়েটের শের-ই-বাংলা হলের-১০১১ নম্বর রুম থেকে তু’লে নিয়ে গেছে গো’য়েন্দা পুলিশ।

পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

আপনার মতামত কমেন্টস করুন