শিরোনাম
ত্রিশালে মৎস্য আহরণোত্তর সেবা কেন্দ্র উদ্বোধন ত্রিশাল থানা রোডে মহাদুর্ভোগ নিরসন করলেন মেয়র আনিছ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে নকলায় আনন্দ মিছিল বানভাসি মানুষের সহায়তায় ত্রিশালের বিভিন্ন সংগঠন, সহযোগীতায় সমাজসেবীরা ত্রিশাল পৌরসভার প্রায় সাড়ে ৪৩ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা নিহত সাংবাদিক রতনের স্মরণে ত্রিশাল উপজেলা প্রেসক্লাবের মিলাদ ও দোয়া মাহফিল ত্রিশাল আ’লীগে লাখো মানুষের প্রত্যাশা রয়েছে মেয়র আনিছকে নিয়ে নওগাঁর মহাদেবপুরে হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে নিয়ে ফেসবুকে অশালীন বাক্য পোস্ট করার অপরাধে আটক-১ ত্রিশালে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বিষয়ক মতবিনিময় শরীয়তপুর জেলা যুব মহিলালীগের কর্মীসভা: জেলা কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা
বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৪:৪৬ অপরাহ্ন

ত্রিশাল আ’লীগে লাখো মানুষের প্রত্যাশা রয়েছে মেয়র আনিছকে নিয়ে

রিপোটারের নাম / ১৩৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১৭ জুন, ২০২২

স্টাফ রিপোর্টারঃ
১৯ বছর পর আগামী ১জুলাই ত্রিশাল উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনের বতারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। এই ঘোষণায় তাকিয়ে আছে ত্রিশালের লাখো জনতা।দীর্ঘদিন আওয়ামীলীগের সম্মেলন না হওয়ায় ত্রিশাল আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক কর্মকান্ড স্থবির হয়ে অাছে। যে যার খুশীমত নেতা ঘোষণা করছেন কেন্দ্রে যাতায়াত করছেন। আর কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে উপস্থাপিত হচ্ছেন বলছেন ত্রিশাল তাকে চাচ্ছে। একটা জিনিষ লক্ষ করলে দেখা যায় আওয়ামীলীগের পদের প্রার্থী হয়ে অনেক গ্রুপি মিছিল মিটিংয়ে উপস্থিত জনতার মাঝে ১৯ বছরের কম বয়সী ছেলেদের সংখ্যা অনেক বেশী উপস্থিতি দেখতে পাওয়া গেছে তাহলে কি বয়স্ক আওয়ামীলীগ গুলো কর্মসূচিতে আসা বাদ দিয়ে ফেলেছেন?

ত্রিশাল উপজেলা আওয়ামীলীগের বিভিন্ন গ্রুপ মরিয়া হয়ে উঠেছে পদে যাওয়ার নেশায় অথচ ১৯৭১ সালের আগে কিম্বা পরে ত্রিশাল সদরে যারা নেতৃত্ব দিয়েছিল তাদের অনেককে চিনেন না ঐসব নেতারা এবং তাদের পরিবারকেও চিনেন না, ঠিকই কেন্দ্রীয় নেতাদের বাড়ি ঘরে কয়টা দরজা কয়টা জানালা সবটুকু চিনে ফেলেছে। অনেক প্রার্থীরা তারা আজো চিনেন না ত্রিশাল আওয়ামীলীগের রাজনীতি কারা করেছে? কোন নেতা কোন অঞ্চলে বসবাস তাদেরকে।

ত্রিশালের আপামর জনতার দাবী ঐ ধরনের নেতাদেরকে যাতে কেন্দ্রীয় ও জেলার নেতারা সমর্থন না দেয়।

ঐদিকে ত্যাগী নেতাদের একটি বিরাট অংশ নিরব হয়ে বসে আছেন। কেউ কিছুক্ষণ সময় চায়ের দোকানে আড্ডা দেয়,কেউ কোন ক্লাব সংগঠনে আড্ডা দিয়ে দিন পাড় করছেন যারা এক সময় ত্রিশালে ছাত্রলীগ, যুবলীগ নেতৃত্ব দিয়েছেন আবার কেউ আওয়ামীলীগের নেতৃত্ব দিয়েছেন।

ক্লান্ত ত্যাগী নেতারা শান্তনা একটাই নিয়ে বসে আছেন আওয়ামীলীগ সরকারে আছে। তাদের প্রত্যাশা দল এক সময় তাদেরকে ডাকবে।

অন্যদিকে লাখো আওয়ামীলীগের কর্মী সমর্থকেরা ত্রিশাল আওয়ামীলীগের সেই আগের ঐতিহ্য ফিড়ে পাবে এই ভাবনায় রয়েছেন।

দীর্ঘদিন ত্রিশালের সাংগঠনিক কর্মকান্ড গতিশীল নেতৃত্ব না থাকায় দলের অনেক কর্মীরা অনেক সময় নানা সমস্যায় দিশেহারা হয়ে ছুটাছুটি করেন অবশেষে একমাত্র মেয়র আলহাজ্ব এবিএম আনিছুজ্জামান আনিছের সহযোগীতায় পেয়েছেন বহু নেতা কর্মী। কর্মীরা বুক ফুলে বলতে পারেন দল ক্ষমতায় নেতা টেলিফোন করেছে কাজ হয়েছে। আজ প্রায় ১২ বছর ত্রিশাল পৌরসভার মেয়র যিনি পৌর মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে প্রতিদিন ১৬ ঘন্টা কাজ করছেন আবার কোন ইউনিয়ন কিম্বা ওয়ার্ডের নেতা কর্মীর সমস্যা হচ্ছে এগিয়ে যাচ্ছেন মেয়র আনিছ।
আজ ত্রিশাল আওয়ামীলীগের নতুন কমিটি হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলোতে দেখা যায় অনেক প্রার্থী হয়েছেন যা কেন্দ্র ইতিমধ্য অবগত হয়েছেন। এই ত্রিশালের প্রায় পাঁচ লাখ জনতা তারা কি চাচ্ছেন? কখনো কি জানতে চেয়েছেন কোন দায়িত্ব প্রাপ্ত নেতারা? এই ত্রিশাল আওয়ামীলীগের অঞ্চল হওয়ার পেছনে যারা কাজ করছে, যারা জাতীয় সংসদ নির্বাচন করে জয়ী হয়েছিলেন, যারা দলের জন্য জেল খেটেছেন তাদের পরিবার গুলোকে একদিনের জন্যও খোঁজ খবর নেয়নি বর্তমানে যারা প্রার্থী হয়ে গেছেন নেতা হওয়ার জন্য। আজ সম্মেলন কাছাকাছি সময় হয়তো যারা কেন্দ্রে পরিচিতি হয়ে উঠেছেন তারা দলের দায়িত্ব পাবেন আর ত্যাগীরা অপেক্ষায় থাকবেন ।
এই সিদ্ধান্তে ত্রিশাল আওয়ামীলীগে নব্যরা নেতা হবেন ত্যাগীরা হবে লাঞ্জিত।

ত্রিশাল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল মতিন সরকার যিনি এমপি ছিলেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন ও ত্রিশাল পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব এবিএম আনিছুজ্জামান আনিছ যিনি ত্রিশাল থানা ছাত্রলীগ যুগ্ম আহবায়ক ছিলেন, ১৮ বছর উপজেলা যুবলীগ সভাপতি ছিলেন এই দুই নেতার হাত ধরেই বর্তমান প্রজন্মের হাজার হাজার নেতা কর্মী যারা বর্তমানে নেতৃত্বের জন্য ছুটে চলছেন এই সম্মেলনে এই দুই নেতার অংশ গ্রহন অতীব জুরুরী বলে মনে করেন ত্রিশালের প্রবীণ রাজনীতিবিদরা। এই ত্রিশালের আওয়ামীলীগকে ঐক্য করে তুলতে তাদের বিকল্প তারা নিজেই। ত্রিশাল আওয়ামীলীগের আলহাজ্ব আব্দুল মতিন সরকারের পরে যদি কোন নেতা জনপ্রিয়তার চ্যালেঞ্জ করতে পারেন তিনি হলেন মেয়র আনিছ। উপজেলা জুড়েই লাখো মানুষের দীর্ঘদিনে প্রত্যাশা মেয়র আনিছকে নিয়ে তিনি যেন দলের দায়িত্ব পায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ