শিরোনাম
ত্রিশালে আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত ত্রিশালে আনন্দঘন পরিবেশে মেয়র আনিছের ৫৩ তম জন্মদিবস পালন শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন দৈনিক পল্লী সংবাদ পত্রিকার সম্পাদক আজাহার ত্রিশাল উপজেলা প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত জাককানইবি উইমেন লিডার্স প্রকল্পের নতুন কমিটি ঘোষণা;সভাপতি ইরা সম্পাদক আঁখি ময়মনসিংহ সম্মিলিত প্রেসক্লাবের কমিটি গঠন সভাপতি রবি – সম্পাদক সফিক ত্রিশালে ইউপি নির্বাচনে আ’লীগ প্রার্থীদের জয়ের মূখ্য ভূমিকা ছিল মেয়র আনিছের কানিহারীতে ১নং ওয়ার্ড মেম্বার পদে যুবসমাজের পছন্দের প্রার্থী রাশেদুল ইসলাম রাশেদ বদলগাছীতে ধান ক্ষেতে অজ্ঞাত ব্যক্তির ‘পা’ উদ্ধার করেছে পুলিশ উল্লাপাড়ায় গেম খেলতে বাধা দেয়ায় এসএসসি পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা
মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০২:২৬ অপরাহ্ন

দিনাজপুর এর খানসামায ১২ শ হেক্টর জমিতে আগাম আলু রোপন

রিপোটারের নাম / ৫৫৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৫ নভেম্বর, ২০২০

তাজ চৌধুরী, দিনাজপুর ব্যুরোঃ
দিনাজপুরের খানসামা উপজেলায় আগাম আলু চাষের ধুম পড়েছে। গত বছর লাভ বেশি পাওয়ায় এবার কৃষকেরা আলু চাষে ঝুঁকে পড়েছেন।

খানসামা উপজেলায় আগাম জাতের আমন ধান লাগানো হয়েছিল। ধান কাটা ও মাড়াই প্রায় শেষ পর্যায়ে। এখন চলছে আগাম আলু লাগানোর কাজ। এ জন্য জমি তৈরিসহ সার প্রয়োগে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকেরা। কুপরী, সেভেন, বগুরাই, সিলবিলাতি (লাল), গ্রানুলা স্টোরিজ ও কার্ডিলালসহ দেশি ও উন্নত জাতের আলু লাগানো হচ্ছে।
সিলবিলাতি ছাড়া অন্য জাতের আলু ৫০থেকে৬০ দিনের মধ্যে তুলে বাজারজাত করা সম্ভব বলে জানিয়েছেন কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা ও কৃষকেরা। কৃষকদের মতে, ইতিমধ্যে প্রায় ২০ ভাগ জমিতে আলু লাগানো সম্পন্ন হয়েছে।
খানসামা উপজেলার ৪নং খামারপাড়া ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া (জমিদার নগর) গ্রামের কৃষক তাজ ফারাজুল ইসলাম চৌধুরী ৩বিঘা জমিতে এবার সেভেন জাতের আলু লাগিয়েছেন। তিনি বলেন, এবার ধান কাটার পর জমিতে (আগাম) আলু রোপন করেছি, বীজের প্রচুর দাম। তারপরও আলু রোপন করছি। এ আলু ৫০/৫৫ দিনের মধ্যেই তোলা যাবে। আমাদের এখানে মাটি হচ্ছে বালুমিশ্রিত। ভারী বৃষ্টিপাত হলেও আলুখেতের ক্ষতি হয় না। তাই আগাম আলু চাষে কোনো ভয় থাকে না। এবার আমি নিজে তিনবিঘা জমিতে আলু রোপন করছি।

খামারপাড়া গ্রামের আরেক জন কৃষক ধীরেন্দ্র নাথ বলেন, ‘ আমরা হয়েছি গ্রামের মানুষ। এইখানকার মাটিতে সব রকমের আবাদ হয়। বুদ্ধি-সুদ্ধি করে ফসল রোপন করতে লাগে। ভুট্টা, আলু, বাদাম, মরিচ, পেঁয়াজ এই ফসলগুলা ভালো হয়। এখন আলু গেড়েছি। এই আলু আগেই উঠবে, বাজারে তখন দামও ভালো থাকবে।’

উপজেলা কৃষি অফিসার বাসুদেব রায় জানান, খানসামায় প্রায় ১২০০ হেক্টর আগাম জাতের আলুর চাষ হচ্ছে। এখন যে জমিতে কৃষকেরা আলু লাগাচ্ছেন, তা ৫০/৫৫ দিনের মধ্যে তুলে বাজারে বিক্রি করতে পারবেন। মৌসুমের শুরুতে নতুন আলুর চাহিদা থাকায় এমনিতেই বাজারে দাম চড়া থাকে। বালুমিশ্রিত পলি মাটিতে আগাম আলুর ফলন ভালোই হয়। তাই কৃষকেরা আগাম আলু চাষে ঝুঁকে পড়েছেন। ধারণা করা হচ্ছে, উপজেলায় চলতি মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে আলুর চাষ হবে। মাঠপর্যায়ে কৃষকদের পরামর্শ প্রদানে আমরা তৎপর রয়েছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ