শিরোনাম
ত্রিশাল ইউনিয়নে আ’লীগের দলীয় চেয়ারম্যান হতে হলে, দরকার জাকির হোসেন সরকারের ত্রিশালে বিভিন্ন পূজা মন্ডপ পরিদর্শন করলেন মেয়র আনিছ ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আহাম্মদ আলী বুলুর নির্বাচনী প্রচারনা ত্রিশালে শ্রমিক লীগের ৫২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন শারদীয় দুর্গা পূজার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কানিহারী ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ ফরহাদ হোসেন অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ, হাইকোর্টে আপিল করলেন বনেক ত্রিশা‌লে বাংলা‌দে‌শের খবর প‌ত্রিকার প্রতিষ্ঠা বা‌র্ষিকী পা‌লিত ত্রিশালে রাজনৈতিক ভাবে হেয় করতে মেয়র আনিছের বিরুদ্ধে চক্রান্ত ত্রিশালের মঠবাড়ি ফুটবল ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত ত্রিশালে বিরল রোগাক্রান্ত সালমানের পরিবারকে ঘর প্রদান
শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৪৩ অপরাহ্ন

দিনাজপুর এর খানসামায ১২ শ হেক্টর জমিতে আগাম আলু রোপন

রিপোটারের নাম / ৪৮৮ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৫ নভেম্বর, ২০২০

তাজ চৌধুরী, দিনাজপুর ব্যুরোঃ
দিনাজপুরের খানসামা উপজেলায় আগাম আলু চাষের ধুম পড়েছে। গত বছর লাভ বেশি পাওয়ায় এবার কৃষকেরা আলু চাষে ঝুঁকে পড়েছেন।

খানসামা উপজেলায় আগাম জাতের আমন ধান লাগানো হয়েছিল। ধান কাটা ও মাড়াই প্রায় শেষ পর্যায়ে। এখন চলছে আগাম আলু লাগানোর কাজ। এ জন্য জমি তৈরিসহ সার প্রয়োগে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকেরা। কুপরী, সেভেন, বগুরাই, সিলবিলাতি (লাল), গ্রানুলা স্টোরিজ ও কার্ডিলালসহ দেশি ও উন্নত জাতের আলু লাগানো হচ্ছে।
সিলবিলাতি ছাড়া অন্য জাতের আলু ৫০থেকে৬০ দিনের মধ্যে তুলে বাজারজাত করা সম্ভব বলে জানিয়েছেন কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা ও কৃষকেরা। কৃষকদের মতে, ইতিমধ্যে প্রায় ২০ ভাগ জমিতে আলু লাগানো সম্পন্ন হয়েছে।
খানসামা উপজেলার ৪নং খামারপাড়া ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া (জমিদার নগর) গ্রামের কৃষক তাজ ফারাজুল ইসলাম চৌধুরী ৩বিঘা জমিতে এবার সেভেন জাতের আলু লাগিয়েছেন। তিনি বলেন, এবার ধান কাটার পর জমিতে (আগাম) আলু রোপন করেছি, বীজের প্রচুর দাম। তারপরও আলু রোপন করছি। এ আলু ৫০/৫৫ দিনের মধ্যেই তোলা যাবে। আমাদের এখানে মাটি হচ্ছে বালুমিশ্রিত। ভারী বৃষ্টিপাত হলেও আলুখেতের ক্ষতি হয় না। তাই আগাম আলু চাষে কোনো ভয় থাকে না। এবার আমি নিজে তিনবিঘা জমিতে আলু রোপন করছি।

খামারপাড়া গ্রামের আরেক জন কৃষক ধীরেন্দ্র নাথ বলেন, ‘ আমরা হয়েছি গ্রামের মানুষ। এইখানকার মাটিতে সব রকমের আবাদ হয়। বুদ্ধি-সুদ্ধি করে ফসল রোপন করতে লাগে। ভুট্টা, আলু, বাদাম, মরিচ, পেঁয়াজ এই ফসলগুলা ভালো হয়। এখন আলু গেড়েছি। এই আলু আগেই উঠবে, বাজারে তখন দামও ভালো থাকবে।’

উপজেলা কৃষি অফিসার বাসুদেব রায় জানান, খানসামায় প্রায় ১২০০ হেক্টর আগাম জাতের আলুর চাষ হচ্ছে। এখন যে জমিতে কৃষকেরা আলু লাগাচ্ছেন, তা ৫০/৫৫ দিনের মধ্যে তুলে বাজারে বিক্রি করতে পারবেন। মৌসুমের শুরুতে নতুন আলুর চাহিদা থাকায় এমনিতেই বাজারে দাম চড়া থাকে। বালুমিশ্রিত পলি মাটিতে আগাম আলুর ফলন ভালোই হয়। তাই কৃষকেরা আগাম আলু চাষে ঝুঁকে পড়েছেন। ধারণা করা হচ্ছে, উপজেলায় চলতি মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে আলুর চাষ হবে। মাঠপর্যায়ে কৃষকদের পরামর্শ প্রদানে আমরা তৎপর রয়েছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ