বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী বলেই দীর্ঘসময় লকডাউনে কেউ অনাহারী হয়ে মারা যায়নি বলছেন- মেয়র আনিছুজ্জামান

0
439

স্টাফ রিপোর্টার// সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশে দীর্ঘ সময় লকডাউন থাকায় ময়মনসিংহের ত্রিশাল পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব এবিএম আনিছুজ্জামান আনিছের সাথে পৌরসভার অসহায় কর্মহীন
ঘরে থাকা মানুষদের নিয়ে কথা বললে তিনি জানান,ত্রিশাল পৌরসভার সকল কর্মহীন অসহায় মানুষ গুলো ভালো আছে এবং ভালো থাকবে। কেউ না খেয়ে থাকবে না এবং না খেয়ে মারা গেছে এমন কোন ঘটনাও ঘটেনি । ৫মে সকালে ত্রিশালে তাঁর বাসভবনে স্থানীয় সাংবাদিকরা কথা বললে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, ত্রিশাল পৌরসভা কেন? বঙ্গবন্ধুর কন্যা যতদিন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী থাকবেন ততদিন বাংলাদেশ নিরাপদে থাকবে। বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধান মন্ত্রী আছেন বলেই
দীর্ঘসময় সারাদেশ লকডাউনে থাকার পরও
বাংলাদেশে কোথাও অনাহারী হয়ে কেউ মৃত্যুবরণ করছে এমন কোন খবর আজো প্রকাশ হয়নি। এছাড়াও মেয়র বলেন,
সারা বিশ্বে করোনার মহামারীতে সব কর্মকান্ড স্থবিরতা আর আতংকে গোটা দুনিয়া লকডাউন। যে যার পেশা কর্মরত ছিল সে তার পেশা স্থগিত রেখে নিরাপত্তা নিয়ে স্ব স্ব ঘর বন্দী । এমতাবস্থায় বাংলাদেশও করোনার সংক্রমণ বিস্তার বৃদ্ধি পাওয়ায় বাংলাদেশ সরকার আহবান করেন সবাই যেন নিজ নিজ নিরাপত্তা নিয়ে যার যার ঘরে অবস্থান করেন। সরকারের আহবানে সারা দিয়ে দেশের সকল শ্রেণী-পেশার মানুষ দীর্ঘদিন লকডাউন মেনে ঘরে অবস্থান করছেন। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা করোনা বিষয়ে সার্বক্ষণিক দেশের সকল জেলার মানুষের খোঁজখবর নিচ্ছেন ও পর্যবেক্ষণ করছেন। ঘরবন্দী মানুষের জন্য ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে বিশাল বরাদ্ধ দিয়ে প্রতি পাড়া মহল্যায় কর্মহীন অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন।
এই ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দেওয়ার বিষয়টি সরকারের বিশাল এক সাফল্য হিসেবে দেশও দেশের বাহিরেও সুনাম সৃষ্টি হচ্ছে। করোনার এই দূর্যোগময় মহুত্যে সরকার ব্যাপক সফলতার সাথে সারা দেশে সকল মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সমস্যার মুখোমুখি করছেন। আর এটা সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধান মন্ত্রী আছেন বলেই। পিতার মত দেশ প্রেম নিয়ে দেশের মানুষ গুলোর সবচেয়ে খারাপ সময় দল মত নির্বিশেষে সকল মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই পাশে দাঁড়ানোর সহানুভূতি দীর্ঘসময় দেশ লকডাইন থাকার পরও একজন মানুষও না খেয়ে কষ্ট পাওয়ারো খবর পাওয়া যায়নি। এছাড়াও আনিছুজ্জামান আনিছ বলেন, আমরা আমাদের অবস্থান থেকে সার্বক্ষণিক খোঁজখবর রাখছি কেউ যেন অনাহারী না থাকে ও কষ্ট না করে।

পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

আপনার মতামত কমেন্টস করুন