মন্ত্রীর ভাতিজা পরিচয়ে নারী ধর্ষণ: থানায় অভিযোগ

0
59

খায়রুল আলম রফিক
রেলমন্ত্রীর ভাতিজা পরিচয় প্রতারণার মাধ্যমে সাধারণ মানুষের অর্থ আতœসাৎ, নারীদের বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগ কামরুজ্জামন জুয়েলের বিরুদ্ধে। কে এই কামরুজ্জামন জুয়েল ? যার প্রতারণার ফাঁদে পড়ে নিঃস্ব হচ্ছেন মানুষ। মহানগরী ঢাকার দক্ষিণখান থানা এলাকার একটি বাসায় একটি মেয়েকে বিয়ের প্রলোভনে আটকে রেখে দিনের পর দিন ধর্ষণ করার অভিযোগ তার বিরুদ্ধে। এছাড়াও অভিনব কায়দায় সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করে আসছে জুয়েল । কামরুজ্জামান জুয়েলের প্রতারণার শিকার হয়ে নিঃস্ব হয়েছেন অনেক পরিবার। রেলমন্ত্রী অ্যাডভোকেট নূরুল ইসলাম সুজনের ভাতিজা দাবি করে ভয়-ভীতি ও প্রতারণা করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। একসময়ে প্রতারক জুয়েল পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের নেতা ছিল । সে পঞ্চগড় জেরার দেবীগঞ্জ কলেজপাড়া এলাকার মৃত আবুল মনসুর আহমেদ এর পুত্র। প্রতারনার শিকার হয়ে এক নারী তার এহেন কর্মকান্ডে সর্বস্ব হারিয়ে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সে শরণাপন্ন হয়েছেন। কামরুজ্জামান জুয়েলের প্রতারণা ও ধর্ষণের শিকার হয়ে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সে একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন এক নারী ইতিপূর্বে দক্ষিণখান থানায় লিখিত অভিযোগও করেছেন। ভুক্তভোগী নারীর অভিযোগ, জুয়েল নিজেকে মন্ত্রীর ভাতিজা পরিচয় দেয়। জুয়েল তাকে চাকুরি দেয়ায় নামে ৫ লাখ টাকা আতœসাৎ করে। বিয়ে প্রলোভন দেখিয়ে একটি ঘরে আটকে রেখে দিনের পর দিন ধর্ষণ করে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কামরুজ্জামন জুয়েল চাকরি দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে নারী ধর্ষন ও ছেলে মেয়েদের চাকুরি দেয়ার নামে বিপুল অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। অভিযোগ কামরুজ্জামান জুয়েল একজন ভয়ঙ্কর প্রতারক। তার এই প্রতারণায় অনেক নিরীহ মানুষ নিঃস্ব হয়েছে, হয়রানির শিকার হয়েছেন। বিষয়গুলি খতিয়ে দেখে এই প্রতারককে আইনের আওতায় আনার দাবি ভুক্তভোগীদের। এ বিষয়ে জুয়েলের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, আমি কে জানিস, আমি ছাত্রলীগ করি ? যা বলবে মন্ত্রী বলবে ।

পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

আপনার মতামত কমেন্টস করুন