সখিপুরের প্রভাবশালী মোশারফ মোল্যা কর্তৃক সৌদি প্রবাসীর জমি দখলের অভিযোগ

0
1130

ভেদরগঞ্জ (শরীয়তপুর) প্রতিনিধি:
শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের শেখ-মোল্যার কান্দি গ্রামের প্রভাবশালী মোশারফ মোল্যা কর্তৃক একই গ্রামের শাহা মোল্যা নামক এক সৌদি প্রবাসীর জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। এদিকে, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শাহজালাল মালের নির্দেশে এ ঘটনা জানাতে গিয়ে এক গ্রামপুলিশ মারধরের শিকার হয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। উল্টো এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নানান মাধ্যমে সুনাম নষ্টের করছে বলেও জানা গেছে। এর ইন্ধন দিচ্ছে ওই প্রভাবশালী মোশারফ মোল্যা।
স্থানীয় ও ভুক্তভোগীসূত্রে জানা যায়, শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের শেখ-মোল্যার কান্দি গ্রামের শাহা মোল্যা দীর্ঘদিন যাবৎ সৌদি আরবে থাকে। বাড়িতে তার বৃদ্ধ মা, প্রতিবন্ধি বোন ও স্ত্রী পরিজন থাকে। এ সুযোগে স্থানীয় প্রভাবশালী মোশারফ মোল্যার শাহা মোল্যার বাড়ি দখলের পায়তারা করে। এনিয়ে কয়েক দফা স্থানীয় পর্যায়ে সালিশী হয়েছে। তবে সম্প্রতি আবারও শাহা মোল্যার বাড়ি দখলের উদ্দেশ্যে পাকা ভবন নির্মাণ করতে যায়। রীতিমতো জোরপূর্বক ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করে দেয়। অভিযোগ পেয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও সখিপুর থানা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক শাহজালাল ঘটনাস্থলে গ্রাম পুলিশ পাঠায় ও কাজ করতে নিষেধ করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মোশারফ গ্রামপুলিশকে আটকে রেখে মারধর করে। পরে স্থানীয়রা গিয়ে ওই গ্রাম পুলিশকে উদ্ধার করে। এদিকে লোক জানাজানি ও চেয়ারম্যানের ভূমিকার কারণে জমি দখলে ব্যর্থ হয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে মোশারফ। তাই সে চেয়ারম্যানের বিরুদ্বে বিভিন্ন মাধ্যমে নানান অপ্রচার ও বিভ্রান্তিকর এবং মানহানিকর তথ্য ছড়াচ্ছে। অন্যদিকে, চেয়ারম্যান শাহজালাল মালের বিরুদ্ধে নানান মাধ্যমে অপপ্রচার ও সুনাম নষ্টের পাঁয়তারা করায় ফুঁসে উঠেছে সাধারন জনগণ ও দলের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা। তারা অবিলম্বে গুজব ও অপপ্রচারকারীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে।
এব্যাপারে চেয়ারম্যান শাহজালাল মাল বলেন, কুচক্রীমহল যতই ষড়যন্ত্র ও অপপ্রচার করুক; তাতে আমি থামবো না। আমি দল ও জনগণের জন্য সবসময় কাজ করেই যাবো। আমি সারাজীবন মানুষের কল্যাণে কাজ করতে চাই। এজন্য সকলের দোয়া ও আশির্বাদ কামনা করছি।
এ ব্যাপারে দক্ষিণ তারাবুনিয়া সহ বিভিন্ন এলাকার লোকজন ও দলীয় নেতাকর্মীরা বলেন, চেয়ারম্যান শাহজালাল মাল দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামীলীগের রাজনীতি করে আসছে। সে মানুষের বিপদে আপদে পাশে দাঁড়ায়। তিনি এলাকায় শতভাগ ন্যায় ভাবে বিচার শালিশ করে। এতে সাধারন মানুষ খুশি। তবে একটি কুচক্রীমহল তাঁর সাফল্য দেখে ঈর্স্বান্বিত হয়ে সম্প্রতি তাঁর পিছু লেগেছে। কিন্তু তারা সফল হবে না। আমরা অতীতে তাঁর সাথে ছিলাম, বর্তমানে আছি, ভবিষ্যতেও থাকবো, ইনশাআল্লাহ।
এব্যাপারে সখিপুর থানার ওসি এনামুল হক বলেন, মোশারফ ও তার ভাতিজা শাহা মোল্যা’র সাথে জমি সংক্রান্ত বিরোধ রয়েছে। বিরোধ মিমাংসার জন্য চেয়ারম্যান উভয়পক্ষকে ডেকেছে। মোশারফ সেখানে যায় নাই। পরে গিয়ে মোশারফ চেয়ারম্যানের সাথে উচ্চ বাচ্য কথা বলে। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
উল্লেখ্য, করোনা সংকটের প্রথম থেকে পানি সম্পদ উপমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীমের নির্দেশে খাদ্য বিতরণ করছেন তিনি। এছাড়াও উপমন্ত্রী শামীমের ব্যক্তিগত তহবিলের খাদ্য সামগ্রী দলীয় নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি সঠিকভাবে পৌছেও দেন। আর সরকারিভাবে বরাদ্দকৃত খাদ্য সামগ্রীও তিনি সঠিকভাবে বন্টন করে বলে জানা গেছে। এছাড়াও নিজে ব্যক্তিগত তহবিল থেকেও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছে তিনি।

পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

আপনার মতামত কমেন্টস করুন